File Is Ready To Download...
File Type: PDF
File Size:  232.00MB
Quality: High
Total pages: 1500+
Source: Google Drive

Note: Remember E-Book is only for pocket version or it can be use when you are travle. If you want to take preparation then The Hard copy of any books is more than helpful than pocket or portable version. So, try to purchase hard copy if you are not having problem with money.

১। বইটিতে সাজেশন দেয়া আছে। তাই আপনাকে বিসিএস প্রিলির জন্য কী পড়বেন আর কী বাদ দিবেন; কোন টপিক বেশি Important আর কোন টপিক কম Important তা নিয়ে ভাবতে হবে না। সেই ভাবনা ছেড়ে দিন "BCS Preliminary Analysis" বইটির উপর।
২। BCS প্রিলির প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ টপিক বিস্তারিত আলোচনা আছে এবং আলোচনা শেষে MCQ Test দেয়া আছে।
৩। পড়া মনে রাখার সহজ টেকনিক দেয়া আছে।
৪। ২ টি স্টাডি রুটিন দেয়া আছে। একটি স্টুডেন্টদের জন্য এবং অন্যটি চাকরিজীবী ও কর্মজীবীদের জন্য।
৫। বিসিএস প্রিলির সিলেবাস আছে।
৬। বিসিএস প্রিলির সকল বিষয় তথা ১২টি বিষয়ে এক সাথে গুছিয়ে পাবেন এই এক বইয়ে পাবেন।
৭। বাংলা, ইংরেজি, গণিত, মানসিক দক্ষতা সহজভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।
৮। সুশাসন ও নৈতিকতা মনে রাখার Special টেকনিক দেয়া আছে। যা আপনি আর কোনো বইয়ে পাবেন না।
৯। ৯ম-১০ শ্রেণির ভূগোল বই Summary করে দেয়া হয়েছে।
১০। সুশাসন ও নৈতিকতা অংশে একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির গুরুত্বপূর্ণ MCQ অধ্যায়ভিত্তিক সংযোজন করা হয়েছে।
১১। ইংলিশ গ্রামার ১৫-২০ বছরের শিক্ষা জীবনে যা শিখতে পারেন নি, এই বই পড়ে অল্প সময়ে অনেক সহজে শিখতে পারবেন।
১২। সাম্প্রতিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো সংযোজন করা হয়েছে।
১৩। বইটি শেষে ২০০ নাম্বারের পূর্ণাঙ্গ মডেল টেস্ট দেয়া হয়েছে।
১৪। বিগত সালের গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নসমূহ ব্যাখ্যাসহ আলোচনা করা হয়েছে।
১৫। পরীক্ষার হলে যেসব বিষয়গুলো "কনফিউশন" তৈরি করতে পারে তা প্রতি অধ্যায় ও টপিক শেষে সুন্দরভাবে ব্যাখ্যাসহ উপস্থাপন করা হয়েছে।
১৬। বিসিএস প্রিলির গুরুত্বপূর্ণ প্রত্যেকটি টিপক যা পরীক্ষায় আসার মতো, এমন Important টপিক বইটিতে গুছিয়ে দেয়া আছে; কোন অপ্রয়োজনীয় প্রশ্ন ও উত্তর সংযোজন করা হয়নি। ফলে স্বল্প সময়ে অল্প পড়ে সহজেই বিসিএস প্রিলির ভালো প্রস্তুতি নিতে পারবেন।

*সাথে আরো অনেক কিছু-
*মনে রাখবে বিসিএস প্রিলি পাশ করতে ২০০ নাম্বারে ১৭০-১৮০ পাওয়া লাগে না। যেকোনো প্রশ্নে ১২০ পেলে আপনি রিটেনের জন্য কোয়ালিফাইড বলে নিশ্চিতভাবে ধরে নিতে পারেন।
তাছাড়া প্রিলিতে বেশি নাম্বার পেয়েও তেমন লাভ নেই। কারণ বিসিএস ক্যাডার নির্ধারিত হয় মূলত রিটেন ও ভাইভার নাম্বারের উপর ভিত্তি করে। প্রিলিতে কেবল পাশ করতে হয়।

Close

Post a Comment

Use Comment Box ! Write your thinking about this post and share with audience.

Previous Post Next Post

Sponsord

Sponsord